সোমবার ২৫শে মার্চ, ২০১৯ ইং ১১ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ সকাল ১১:৫৩
Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Filter by Categories
Uncategorized
অন্য-ভূবণ
অন্যান্য অর্থ-বানিজ্য
অন্যান্য খেলাধুলা
অপরাধ
অপরাধ
অপরাধ
অর্থ বানিজ্য
অর্থ-বাজার
আইটি নিউজ
আইন-আদালত
আমদানি -রপ্তানি
আর্তমানবতা
আর্তমানবতা
আর্তমানবতা
আর্তমানবতা
আর্তমানবতা
ইংরেজী
ইংরেজী-খেলা
ইংরেজী-জাতীয়
ইংরেজী-বিনোদন
উদ্ভাবন ও গবেষনা
উদ্যোক্তার কথা
উন্নয়নের বাংলাদেশ
উৎসব ও অনুষ্ঠান
উৎসব ও অনুষ্ঠান
উৎসব ও অনুষ্ঠান
উৎসব ও অনুষ্ঠান
ঊন্নয়ন
কবিতা
কর্মসংস্থান
কৃষি বার্তা
ক্রিকেট
খুলনা
খেলাধুলা
গ্রামীন খেলাধুলা
ঘর-দোয়ার
চট্টগ্রাম
চিকিৎসা সেবা
চুয়াডাঙ্গা অফিস
জাতীয়
জাতীয় সংসদ
টিপস
টেনিস
ডোনেট সংবাদ
ঢাকা
তৃতীয়-চোখ
দিবস
দুর্ঘটনা
দুর্ঘটনা
দুর্ঘটনা
দুর্ঘটনা
দুর্ঘটনা
দেশজুড়ে
ধর্ম ও জীবন
নতুনত্বের প্রচেষ্টা
নারী কথন
পড়াশুনা
পাঠক
পুরুষ কথন
প্রতিবন্ধি ও পথ শিশু
প্রধানমন্ত্রীর কর্ণার
প্রবাস
প্রযুক্তির খবর
ফিচার
ফুটবল
ফেসবুক থেকে সংগ্রহ
বই মেলা
বরিশাল
বাগেরহাট অফিস
বিনোদন
বিবিধ
বিলুপ্তির পথে
বিশ্ব
ব্যাংক ও বীমা
ভ্রমন
মতামত
ময়মনসিংহ
যশোর অফিস
রংপুর
রাজনীতি
রাজশাহী
রান্নাঘর
রোহিঙ্গা নিধন
র্নিবাচন
লাইফ স্টাইল
লিড নিউজ
শিক্ষক
শিক্ষা বাতায়ন
শিক্ষা সংবাদ
শিশু কিশোর
শেয়ার বাজার
শৈল্পিক সাহিত্য
শোকাহত
শোকাহত
শোকাহত
শোকাহত
শ্রদ্ধ ও সুখবর
শ্রদ্ধ ও সুখবর
শ্রদ্ধা ও সুখবর
সকল
সমসাময়িক
সম্পাদকীয়
সাজসজ্জা
সামাজিক মাধ্যম
সাহিত্য
সিলেট
হাসি-আনন্দ

বিজ্ঞপ্তি


মাঠে আওয়ামী লীগ আদালতে বিএনপি

প্রকাশের সময় : ৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ৯:১৮ পূর্বাহ্ণ  | নিউজটি পড়া হয়েছে : 44

retro ( অনলাইন ডেক্স )  Print

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আর বাকী মাত্র ২৪দিন। নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী রাজনৈতিক দলগুলো তাদের প্রার্থী ঘোষণা করেছে। বিএনপি প্রতিটি আসনে একাধিক প্রার্থী দিলেও আওয়ামী লীগ দু’একটি ছাড়া প্রায় অধিকাংশ আসনেই তাদের একক প্রার্থী ঘোষণা করেছে। ফলে দলটির প্রার্থীরা বিজয়ী হতে ইতোমধ্যেই মাঠে নেমে পড়েছেন। নিজ নিজ এলাকায় গণসংযোগ, নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করার কাজ করছেন। যেসব আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছে তাদেরকে বসিয়ে দিতে কেন্দ্র থেকেও দেয়া হচ্ছে কঠোর বার্তা। কিন্তু নির্বাচনের মাঠে আওয়ামী লীগ জোটের প্রধান প্রতিদ্ব›দ্বী বিএনপি এখনো নির্বাচনের মাঠেই নামতে পারেনি।
একদিকে দলটির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে হাজার হাজার মামলা, নেতাকর্মীরা ঘর-বাড়ি ছাড়া। তফসিল ঘোষণার পরই প্রায় সহস্রাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের অভিযোগ করেছে দলটি। প্রতিদিনই শত শত নেতাকর্মী দেশের সবকটি আদালতে হাজির হচ্ছেন জামিন নিতে। যাদের জামিন হচ্ছে না ঠাঁই হচ্ছে কারাগারে। অন্যদিকে গণহারে দলটির জনপ্রিয় ও হেভিওয়েট প্রার্থীদের প্রার্থীতা বাতিল হওয়ায় বেকায়দায় পড়েছে দলটি। ফলে এখনো বিএনপি তাদের প্রার্থী চূড়ান্তই করতে পারেনি। দলটির প্রথম সারির দেড় শতাধিক নেতার মনোনয়ন বাতিল করার কারণে প্রার্থী চূড়ান্ত করতে অনেকটা হিমশিম খেতে হচ্ছে। আবার যাদেরকে প্রার্থী ঘোষণা করা হবে তাদের অনেকেই মামলার কারণে নিজ এলাকায় যেতে পারছেন না।
তাদের পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিতে পারছেন না মামলা থাকা দলটির নেতাকর্মীরাও। এই অবস্থায় অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচনের কোন সুযোগ দেখছেনা বিএনপি। শেষ মুহূর্তে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের আশা করলেও তার পরিবর্তে সরকারি দলকে জেতানোর জন্য নির্বাচন কমিশন কাজ করছে বলেও অভিযোগ করেছেন দলটির শীর্ষ নেতারা। বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, এখনো সুষ্ঠু নির্বাচনের কোন পরিবেশ নাই। বিএনপি ও বিরোধী দলের প্রার্থী এবং তাদের কর্মী-সমর্থকরা মাঠে নামতে পারছে না। হাজার হাজার গায়েবি মামলার কারণে এলাকায় যেতে পারছে না। বাড়িতে থাকতে পারছে না। এভাবে নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড হয় না। নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন একচোখা নীতি গ্রহণ করেছে। নির্বাচনকে তারা তামাশার বিষয় করে তুলেছে। তারা এমন একটি নির্বাচনী পরিবেশ তৈরি করেছে যেখানে সরকার দলীয় প্রার্থীকে সিল মেরে দেয়ার সুযোগ করে দেয়া। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মত প্রতিদ্ব›িদ্বতাহীন একটি নির্বাচন করার চেষ্টা করছে। এরপরও বিএনপি নির্বাচনে গেছে কেন সে বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, এখনো আমরা একটা ভাল নির্বাচনের আশা করছি। আমরা নির্বাচনকে গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার ফিরে পাবার আন্দোলন হিসেবে নিয়েছি।
নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে ৩ হাজার ৬৫ জন। এর মধ্যে ৩৯টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের প্রার্থী ২ হাজার ৫৬৭জন এবং স্বতন্ত্র ৪৯৮ জন। জমা দেয়া প্রার্থীদের মধ্য থেকে যাচাই-বাছাই শেষে গত রোববার প্রাথমিক প্রার্থীভাবে ২ হাজার ২৭৯ জনকে বৈধ ঘোষণা করেছে। আর রাজনৈতিক দলগুলোর ২হাজার ৫৬৭ জনের মধ্যে বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ২ হাজার ১৬৫জনকে এবং বাতিল করা হয়েছে ৪০২ জনের মনোনয়নপত্র। যার মধ্যে বিএনপির ১৪১জন এবং আওয়ামী লীগের মাত্র তিনজনে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। প্রার্থী বাতিল করার কারণে ইতোমধ্যে ঢাকা-১, বগুড়া-৭, মানিকগঞ্জ-২, সুনামগঞ্জ-৩, জামালপুর-৪ ও শরীয়তপুর-১ আসনে প্রার্থী শূণ্য হয়ে গেছে বিএনপির।
মনোনয়নপত্রে ভুল, ঋণ খেলাপি, বিল খেলাপি, মামলায় সাজা হওয়ার কারণে মনোনয়নপত্র বাতিলের কথা নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। তবে বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে নানা অজুহাতে, ছোটখাটো ভুলে সরকারের নির্দেশে নির্বাচন কমিশন বেছে বেছে সারাদেশে বিএনপির হেভিওয়েট ও জনপ্রিয় প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। সরকার দলীয় প্রার্থীদের বিজয়ী করতেই এধরণের কৌশল নেয়া হয়েছে বলেও মনে করেন দলটির নেতারা। প্রাথমিক যাচাই-বাছাইয়ে এরই মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস (প্রথমে গ্রহণ করা না হলেও গতকাল আদালত গ্রহণ করার নির্দেশ দিয়েছে), চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, ভাইস চেয়ারম্যান এম মোর্শেদ খান, শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, গিয়াস কাদের চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, গোলাম মাওলা রনি, ঢাকার নবাবপুরের উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আশফাক হোসেনসহ বিএনপির ১৪১ নেতা। যারা অন্তত ৮০টি আসন থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করার কথা রয়েছে। এছাড়া বিএনপির জোটসঙ্গী গণফোরামের প্রার্থী রেজা কিবরিয়ার, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) এমএ করিম আব্বাসীরও মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, টার্গেট করে বিএনপির হেভিওয়েট ও জনপ্রিয় নেতা এবং সাবেক এমপিদের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়াসহ বিএনপির অসংখ্য মনোনয়ন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বাতিল করা হয়েছে। তিনি বলেন, বিনা অজুহাতেই বিএনপি প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। রিটার্নিং অফিসারদের কক্ষ সংলগ্ন ‘ছোট রুম’ আছে। বিএনপি প্রার্থীদের মনোনয়ন পত্র বাতিল করা হবে কি হবে না সেটি জানার জন্য বারবার রিটার্নিং অফিসার ঐ ছোট রুমে ছুটে যান। মূলত: সরকারের নির্দেশ শোনার জন্যই রিটার্নিং অফিসারকে বারবার ঐ রুমে যেতে হয়। বিএনপি’র প্রার্থীদের অনেকেরই মনোনয়নপত্র নির্ভূল থাকার পরেও ওই ছোট রুম থেকে ফিরে এসে রিটার্নিং অফিসার (ডিসি) বলেন, উপরের নির্দেশ আছে বলেই এই মনোনয়নপত্রটি বাতিল করতে আমি বাধ্য হচ্ছি।
প্রাথমিক যাচাই-বাছাইয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল হলেও এখনো আপিল করে প্রার্থীতা ফিরে পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আজ প্রার্থীতা ফিরে পেতে আপিল করার শেষ দিন। যেসব অবৈধ ঘোষিত প্রার্থী আপিল করবেন তাদের বিষয়ে ৬ থেকে ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত শুনানি শেষে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে ইসি। তবে এক্ষেত্রে সরকার এবং নির্বাচন কমিশন খুব একটা নমনীয় হবে বলে মনে করেন না বিএনপি নেতারা। এছাড়াও একই কারণে বিএনপির প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হলেও আওয়ামী লীগের ক্ষেত্রে বহাল রাখা হয়েছে বলেও দাবি করে বিএনপি।
রুহুল কবির রিজভী বলেন, ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্রে অসংখ্য ত্রুটি থাকার পরেও সেগুলোকে বাতিল করা হয়নি। দুর্নীতি মামলায় দন্ডিত হওয়ার তথ্য গোপনের অভিযোগ থাকার পরেও সরকারি দলের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়নি। তিনি বলেন, দন্ড হওয়ার কারণ দেখিয়ে বেগম খালেদা জিয়া, ডাঃ এ জেড এম জাহিদ হোসেন ও আমানউল্লাহ আমানসহ বিএনপি’র পাঁচ নেতার আবেদন নাকচ করা হলেও একই কারণ বিদ্যমান থাকলেও মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এবং কক্সবাজারের এমপি আব্দুর রহমান বদির মনোনয়নপত্র বৈধ করা হয়েছে।
চূড়ান্ত বাছাইয়ে বিএনপির প্রার্থীরা প্রার্থিতা ফিরে না পেলে বেশ সঙ্কটেই পড়তে হবে বলে মনে করেন দলটির শীর্ষ নেতারা। এছাড়া এর সাথে রয়েছে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা। দলটির তৃণমূলের নেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, দলের পক্ষ থেকে যাদের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে এবং তাদের পক্ষ হয়ে যেসব নেতাকর্মী ও সমর্থকরা মাঠে কাজ করবেন তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা। কারো কারো বিরুদ্ধে এই মামলার সংখ্যা আড়াইশও ছাড়িয়ে গেছে। দলটির ঢাকা-১২ আসনে বিএনপির প্রার্থী সাইফুল আলম নিরবের বিরুদ্ধে ২৬৭টি মামলা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের প্রার্থী ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার মামলা ২৫টি, ঢাকা-১৮ আসনের প্রার্থী এসএম জাহাঙ্গীরের মামলা ১৩৮টি, নবীউল্লাহ নবী ১২১, শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসের ১০৮টি, খোদ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বিরুদ্ধে মামলা প্রায় শতাধিক। একইভাবে দলের শীর্ষ নেতা থেকে তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকদের বিরুদ্ধেও একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে বিএনপি।
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দলের এমন কোন নেতা নাই যার বিরুদ্ধে কোন মামলা নাই। ২০০৯ সালের পর গত ১০ বছরে বিএনপির বিরুদ্ধে ৯০ হাজার মামলা করা হয়েছে এবং এসব মামলায় আসামী করা হয়েছে ২৫ লাখ ৭০ হাজার আসামী। আর গত ১ সেপ্টেম্বর বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর পর থেকে দলের ৮৫ হাজার নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ৪ হাজার ১২৬টি গায়েবি মামলা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। এই অবস্থায় দলটির নেতাকর্মীদের নির্বাচনের মাঠের পরিবর্তে আদালত-কারাগারে চক্কর খেতে হচ্ছে।
দলটির তৃণমূল নেতাকর্মীরা জানান- মনোনয়ন পাওয়ার পরও নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় অনেক বিএনপি প্রার্থীই যেতে পারবেন কিনা তা নিয়ে সন্দেহ-সংশয় রয়েছে। এছাড়া প্রার্থীদের পক্ষে, ধানের শীষের পক্ষে যারা মাঠে নামবেন সেই কর্মী-সমর্থকরাও মামলা-হামলার কারণে এলাকা ছাড়া। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এলাকায় গেলেই নতুন করে দিয়ে দেয়া হচ্ছে মামলা। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিএনপি নেতাকর্মী দেখলেই খবর দিচ্ছে পুলিশকে, পুলিশও ছো মেরে নেতাকর্মীদের নিয়ে যাচ্ছে। যাদের পাচ্ছে না তাদের বিরুদ্ধে দিচ্ছে নতুন মামলা।
দলের যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, নির্বাচনের এখন পর্যন্ত যে পরিবেশ তাতে আওয়ামী লীগ নির্বাচনী প্রচারণা করছে আর বিএনপি ও তাদের প্রার্থীরা থানা-আদালত-কারাগারে ঘুরপাক খাচ্ছে। এই অবস্থায় কি নির্বাচন হবে? তা সহজেই অনুমান করা যায়

আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। এবং নিউজটি শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 + four =

এরকম আরোওঃ


2সোমবার রাতে উপজেলার রামৃষ্ণপুর ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর সীমান্ত থেকে দুই বাংলাদেশীকে আটক করা হয়।

3সোমবার রাতে উপজেলার রামৃষ্ণপুর ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর সীমান্ত থেকে দুই বাংলাদেশীকে আটক করা হয়। স্থানীয়রা জানায়, রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামের খালেক হালসানার ছেলে সেল্টু (


Calendar

মার্চ ২০১৯
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« ফেব্রুয়ারি    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  







বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশের ওয়েব সাইটে প্রকাশিত যে কোন সংবাদ যথাযথ তথ্যসূত্র (রেফারেন্স) উল্লেখ পূর্বক যে কেউ ব্যবহার বা প্রকাশ করতে পারবেন।